দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নেমেছে টাইগাররা

latest news খেলাধুলা

 অনলাইন ডেস্ক: জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নেমেছে বাংলাদেশ। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত টাইগারদের স্কোর ৫ উইকেটে ৩১২ রান। মুশফিকুর রহীম ১১২ এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৬ রান নিয়ে ক্রিজে রয়েছেন। এর আগে রবিবার (১১ নভেম্বর) টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ম্যাচটি শুরু হয় বাংলাদেশ সময় সকাল ৯:৩০ মিনিটে। সরাসরি সম্প্রচার করছে বিটিভি এবং গাজী টিভি।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন জিম্বাবুয়ে পেস বোলার কাইল জার্ভিস। ইনিংসের সপ্তম ওভারে জারভিসের বলে উইকেটরক্ষক চাকাভাকে ক্যাচ দিয়ে শূন্য রানে ফেরেন ইমরুল কায়েস। তার একওভার পর সেই জারভিসের বলেই ব্যক্তিগত ৯ রানে আউট হন লিটন দাস। ইনিংসের ১২তম ওভারে ডোনাল্ড তিরিপানোর বলে খোঁচা দিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন অভিষিক্ত মোহাম্মদ মিঠুন। বিদায়ের আগে কোনো রান করতে পারেননি তিনি। দলীয় ২৬ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ২৬ রানে তিন উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম ও মুমিনুল হক। এই দু’জনের জোড়া সেঞ্চুরিতে দিন শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩০৩ রান করে টাইগাররা। টেস্ট ক্যারিয়ারে সপ্তম সেঞ্চুরির পর ১৬১ রানে বিদায় নেন মুমিনুল। মুমিনুল আউট হবার পর ব্যাটিংয়ে আসেন তাইজুল। কিন্তু তাইজুল চার রান করে আউট হলে দলীয় অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ০ রানে অপরাজিত থেকে ১ম দিনের খেলা শেষ করেন। এদিন, মুমিনুল হকের পর মুশফিকুর রহিমও সেঞ্চুরির দেখা পায়। এদিন মুশফিক তার ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ শতক তুলে নেন। মুশফিক ১৮৭ বল খেলে ৮ চারের সাহায্যে তার শতক পূরণ করেন। জিম্বাবুয়ের সাথে মুশফিকের এটি প্রথম সেঞ্চুরি। তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া দলকে বিপর্যয় কাটিয়ে ভালো অবস্থানে নিয়ে যায় মুশফিক ও মুমিনুল। তাদের দু’জনের ব্যাটে ভর করে ২০০ রানের পার্টনারশিপ গড়ে এই জুটি। চতুর্থ উইকেটে ২০০ রানের রেকর্ড পার্টনারশিপ মুমিনুল ও মুশফিকের। সিলেটে প্রথম টেস্টে হেরে সিরিজ হারের শঙ্কায় রয়েছে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে সিরিজ হার ঠেকাতে মিরপুর টেস্টে জয়ের বিকল্প নেই টাইগারদের সামনে। এ ম্যাচে অভিষেক হয়েছে মিঠুন ও খালেদের। এছাড়া দলে ফিরেছেন সিলেট টেস্টে না খেলা মোস্তাফিজও। এ তিনজনকে জায়গা দিতে দল থেকে বাদ পড়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, নাজমুল ইসলাম অপু ও আবু জায়েদ রাহি। বাংলাদেশ একাদশ লিটন দাস, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম, আরিফুল হক, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান ও খালেদ আহমেদ। জিম্বাবুয়ে একাদশ হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, ব্রায়ান চারি, ব্রেন্ডন টেলর, শন উইলিয়ামস, সিকান্দার রাজা, রেগিস চাকাভা, পিটার মুর, ব্রেন্ডন মাভুতা, ডোনাল্ড তিরিপানো, কাইল জার্ভিস ও টেন্ডাই চাতারা।

শেয়ার করুন