মহেশপুর ও কোটচাঁদপুরকে ভিুকমুক্ত ঘোষণা

খুলনা সারাদেশ

স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহের মহেশপুর ও কোটচাঁদপুর উপজেলাকে ভিুকমুক্ত উপজেলা হিসেবে ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।
বৃহস্পতিবার বিকেলে ভিুকদের মাঝে আয়বর্ধক উপকরণ বিতরণের মাধ্যমে এ ঘোষণা দেন জেলা প্রশাসক মাহবুব আলম তালুকদার। মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশাফুর রহমান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ৫৮ বিজিবির পরিচালক লে. কর্ণেল জিলুর রহমান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাসিনা খাতুন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ইমদাদুল হক বুলু, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো: সিদ্দিকুর রহমান, দুর্নিতী প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন লিটন, পান্তাপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যন ইসমাইল হোসেন।

আলোচনা সভার শুরুতে মহেশপুর উপজেলার ৪০৭ জন ভিুককে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। তারা ভিা না করার শপথ করেন। পরে ভিুকদের মাঝে, ছাগল, মুরগী, ব্যবসায়ের উপকরণসহ আয়বর্ধক উপকরণ বিতরণ করা হয়। এর আগে দুপুরে কোটচাঁদপুর উপজেলাকেও ভিুকমুক্ত ঘোষণা করা হয়।

ঝিনাইদহ ট্রাফিক বিভাগে কি হচ্ছে ?
ঝিনাইদহে ট্রাফিক পুলিশের চেকপোষ্টে যানবাহনের চাকায় পিষ্ট ড্রাইভার !
স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহ শহরের যুব উন্নয়ন অফিসের পাশে বৃহস্পতিবার বিকালে সড়ক দুর্ঘটনায় বাবু (২১) নামে এক ট্রাক ড্রাইভার নিহত হয়েছেন। তিনি সাতক্ষিরার কৈখালী গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে। ঝিনাইদহ সদর থানার এস আই সুজন জানান, পাশে গাড়ি থামিয়ে নাস্তা সেরে রাস্তা পার হওয়ার সময় হানিফ পরিবহনের একটি বাস তাকে চাপা দিয়ে চলে যায়। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করে।

তবে প্রত্যাক্ষদর্শী জানান, ট্রাফিক পুলিশ সেখানে চেকপোষ্ট বসিয়ে কাগজপত্র যাচাই করছিলো। বাবু গাড়ির কাগজপত্র দেখিয়ে রাস্তা পার হওয়ার সময় যানবাহনের চাকায় পিষ্ট হয়ে আহত হন। পরে তাকে পুলিশ উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ সময় টিএসআই প্রদিপ কুমার, কনস্টেবল শুকুমার ও সারোয়ার উপস্থিত ছিলেন। তবে ঝিনাইদহ ট্রাফিক বিভাগের টিআই কৃষ্ণ জানান, ঘটনার সময় সেখানে কোন ট্রাফিক পুলিশ ছিল না।

গাড়ির হেলপার লাবসা গ্রামের আইয়ুব আলী জানান, আমি এখন থানায় আছি। আমি কিছুই বলতে পারবো না। হেলপারের এই রহস্যময় নীরবতা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। বিষয়টি অনুসন্ধান করেত বৃহস্পতিবার রাতে লাউদিয়া যুব উন্নয়ন অফিসের পাশের দোকানদারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দুর্ঘটনার সময় চেকপোষ্টে থাকা পুলিশরাই ড্রাইভার বাবুকে নিয়ে যান। টিএসআই প্রদিপ কুমার জানান, আমি আওয়ামীলীগ নেতা হানিফ সাহেবের নিরাপত্তার ডিউটিতে বাইপাসে ছিলাম। তাই এ সমপর্কে কিছুই জানি না।

বৃহস্পতিবার রাতে ঝিনাইদহ সদর থানায় গিয়ে দেখা গেছে, হেলপার নজরবন্দি। সেন্ট্রি দুই কনস্টেবল জানালেন, হেলপারকে কড়া নজরে রাখা হয়েছে। তার সাথে কথাও বলা যাবে না। স্যারেরা বলেছে সেই আসামী। এ সময় দুই কনস্টেবল হাত উচিয়ে সাংবাদিকদের বাইরে বেরিয়ে যেতে নির্দেশ করে। এখন প্রশ্ন উঠেছে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে ড্রাইভার। কিন্তু হেলপার আইয়ুবকে কেন কড়া নজরে রাখা হবে ? তাহলে কি গাড়ির কাগজ চেক করতে গিয়ে ড্রাইভার বাবু সড়ক দুর্ঘটনায় পড়ে ? এমন হাজারো প্রশ্ন ঘুরপাক খেলেও তার কোন উত্তর মেলেনি।

এদিকে যানবাহনের কাগজপত্র যাচাই বাছাইয়ের নামে ঝিনাইদহের বিভিন্ন সড়কে চরম অর্থ বানিজ্য, গাড়ির মালিকদের হয়রানী ও নাজেহাল করার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। গাড়ির কাগজপত্র থাকার পরও অনেক মালিকের কাছ থেকে জরিমানা আদায়ের নজীর রয়েছে। কোটচাঁদপুর উপজেলার ফুলবাড়ি গ্রামের আসলাম অভিযোগ করেন, তার গাড়ির কাগজপত্র থাকার পরও ১২’ টাকা জরিমানা করে। এর আগে তার কাছে ৫ হাজার টাকা দাবী করা হয়।

অনেক মটরসাইকেল মালিক অভিযোগ করেন, তাদেরকে কোন সময় দেওয়া হচ্ছে না। অথচ হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে গাড়ির মালিকরা ১৫ দিন পর্যন্ত সময় পাবেন। অভিযোগ রয়েছে নসিমন করিমন চালকরা মালামাল ঝিনাইদহ শহরে নামিয়ে খালি গাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় তাদেরকে জরিমানা আদায় করা হচ্ছে। অথচ মালামাল নিয়ে আসার সময় তাদের আটক বা সতর্ক করা হচ্ছে না।

এ ভাবে জরিমানা আদায়ের ফলে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। শোনা যাচ্ছে একজন টিআই ও একজন সার্জেন্টকে প্রতিদিন দুই হাজার টাকা দিতে হচ্ছে। সেই টাকা তুলতে গিয়েই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে কতিপয় ট্রাফিক পুলিশ, এটিএসআই ও টিএসআইরা। তবে এ সব অভিযোগ খন্ডন করে টিআই কৃষ্ণ জানান, আইন মেনেই চেক পোষ্টে গাড়ির কাগজপত্র যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। এখানে কোন অনিয়ম বা দুর্নীতি করা হচ্ছে না।

ঝিনাইদহে পুলিশের বিশেষ অভিযানে জামায়াত কর্মীসহ আটক ৬৩
স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহ ছয় উপজেলায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে দুই জামায়াত কর্মীসহ বিভিন্ন মামলায় ৬৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা গেছে, জেলা ব্যাপী সন্ত্রাস ও নাশকতা বিরোধী বিশেষ অভিযান চালানো হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে রাতে জেলার ছয় উপজেলায় অভিযান চালানো হয়। এসময় ঝিনাইদহ সদর উপজেলা থেকে এক জামায়াত কর্মীসহ ১৮জন, কালীগঞ্জ থেকে ১৫জন, কোটচাঁদপুর থেকে এক জামায়াত কর্মীসহ আটজন, মহেশপুর থেকে ছয়জন, হরিণাকুন্ডুু থেকে আটজন ও শৈলকুপা থেকে আটজনকে গ্রেফতার করা হয়। ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজবাহার আলী শেখ জানান, গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস নাশকতাসহ বিভিন্ন মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
কালীগঞ্জে এই প্রথম বারের মত প্রমিলা মহিলা ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত
স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ
এই প্রথম বারের মত ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে মহিলাদের অংশগ্রহনে প্রমিলা মহিলা ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্টিত হয়েছে। খেলায় ঝিনাইদহ জেলা প্রমিলা মহিলা ক্রিকেট একাদশ ৩ ইউকেটের ব্যাবধানে মাগুরা জেলা প্রমিলা মহিলা ক্রিকেট একাদশ ও কে হারিয়ে জয়লাভ করেছে। কালীগঞ্জ ক্রীড়া ফেডারেশনের আয়োজনে বৃহস্পতিবার দুপুরে সরকারী নলডাঙ্গা ভ’ষণ বিদ্যালয় মাঠে আগত প্রমিলা দুই দলকে অভিনন্দন জানিয়ে খেলার উদ্বোধন করেন এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার।

শুরুতেই টচে জয়লাভ করে মাগুরা জেলা প্রমিলা মহিলা ক্রিকেট দল প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৯ ইউকেট হারিয়ে ১৪০ রান করে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ঝিনাইদহ জেলা প্রমিলা মহিলা ক্রিকেট একাদশ  ১৫ ওভার ৪ বলে ৭ ইউকেট হারিয়ে ১৪৫ রান করে। খেলায় ৩ ইউকেটের ব্যাবধানে ঝিনাইদহ মহিলা ক্রিকেট দল জয়লাভ করে।

বিজয়ী দলের অধিনায়ক রানী সর্ব্বোচ ৫৮ রান ও ৩ টি ইউকেট লাভ করায় ম্যান অব দি ম্যাচ ও সেরা ইউকেট শিকারী বিবেচিত হয়। খেলার ঝিনাইদহের রানী ও মাগরার দিপা হাফ সেঞ্চুরী করায় এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছাদেকুর রহমানের প থেকে শুভেচ্ছা স্বরুপ ২ হাজার টাকা, কালীগঞ্জ প্রেসকাবের সম্পাদক সাংবাদিক জামির হোসেনের পে চারশত টাকা, টি-২০ ফ্যাশনের মাসুদের পে গিফট, মিঠু মালিতার প থেকে দু’দলকে এক হাজার টাকা এবং সেতু পোল্টি ফিড জার্সী স্পন্সর করেন।

খেলা শেষে ম্যান অব দি ম্যাচের রানীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথি এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার। পুরস্কার বিতরনী অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছাদেকুর রহমান, উপজেলা ভ’মি কর্মকর্তা যাদব সরকার ও সমাজসেবা কর্মকর্তা আইনাল হক। বক্তব্য রাখেন ক্রীড়া ফেডারেশনের বাবু অজিৎ ভট্টাচার্ষ্য, ছাত্রলীগ উপজেলা সভাপতি মিঠু মালিতা, মোচিক সমবায় সমিতির সম্পাদক গোলাম রসুল প্রমুখ। খেলায় আম্পায়ারের দ্বায়িত্বে ছিলেন বিজন ভট্টাচার্ষ্য ও সাইদুর রহমান শাহিন, স্কোরার কাত্তিক ভট্টাচাষ্য এবং ধারাভাষ্যকরের দায়িত্বে ছিলেন খোরশেদ আলম ও কামাল হোসেন।

শেয়ার করুন

3 thoughts on “মহেশপুর ও কোটচাঁদপুরকে ভিুকমুক্ত ঘোষণা

  1. Thank you, I have just been looking for info approximately this topic for
    a while and yours is the greatest I’ve found out till now.

    But, what in regards to the bottom line? Are you sure concerning
    the supply?

  2. Oh my goodness! a tremendous article dude. Thank you However I’m experiencing problem with ur rss . Don’t know why Unable to subscribe to it. Is there anybody getting similar rss drawback? Anybody who is aware of kindly respond. Thnkx

Leave a Reply

Your email address will not be published.